প্রিয় পাঠক আজকে আমরা গেট টার্ন অফ থাইরিস্টর অর্থাৎ ইংরেজিতে যাকে GTO বলা হয় সেই সম্পর্কে বিস্তারিত জানবো। GTO এর গঠন ও কার্যপ্রণালী এবং SCR এর তুলনায় এটির সুবিধা ও অসুবিধা সম্পর্কে।

সুইচ হলো এমন একটি নিয়ন্ত্রণকারী ডিভাইস যার মাধ্যমে আমরা কোন সার্কিটকে অন বা অফ অর্থাৎ সার্কিটকে কার্যকর বা অকার্যকর অবস্থায় রাখতে পারি। সুইচ মেকানিক্যাল, ইলেক্ট্রো-মেকানিক্যাল বা ইলেক্ট্রনিক হতে পারে। ইলেক্ট্রনিক সুইচ হিসেবে ফেট, ট্রায়োড, থাইরিস্টর এবং ডায়োডকেও ব্যবহার করা যায়। ইলেক্ট্রনিক সুইচ অত্যন্ত জনপ্রিয়। কারণ এতে স্পার্কিং সমস্যা ও মুভিং অংশ নেই এবং অপারেশন স্পিড অত্যন্ত বেশি।

GTO এর গঠনঃ

গেট টার্ন অফ থাইরিস্টর SCR এর মত একটি পজিটিভ গেট সিগন্যাল প্রয়োগ করে অন করা যায়। এটি ছাড়াও একে একটি নেগেটিভ গেট সিগন্যাল এর মাধ্যমে অফ করা যায়। অর্থাৎ এর গেটে একটি ক্ষুদ্র মানের পজিটিভ পালস দ্বারা একে ON করা যায় এবং একটি ক্ষুদ্র মানের নেগেটিভ পালস দ্বারা একে OFF করা যায়। এরূপ একটি ল্যাচ ডিভাইসকে GTO বলে।

GTO এর কার্যনীতিঃ

ইনপুট সাপ্লাই ভোল্টেজে জেনার ডায়োডের আড়া আড়ি ভোল্টেজ Vz এর সামান্য বেশি হলে জেনার ডায়োড কন্ডাক্ট করে। এতে GTO এর গেটে একটি পজিটিভ সর্ট পালস প্রযুক্ত হওয়ায় অ্যানোড হতে ক্যাথোড এর মাঝে শর্ট সার্কিট হয় এবং GTO টার্ন অন হয়। GTO টার্ন অন হওয়ায় সাপ্লাই ভোল্টেজ হতে C1 চার্জ হতে আরম্ভ করে। C1 এর আড়াআড়ি ভোল্টেজ জেনার ভোল্টেজের চেয়ে বেশি মানে পৌছা মাত্র রিভার্স গেট কারেন্ট দরুন GTO এর গেটে একটি নেগেটিভ শর্ট পালস প্রযুক্ত হয়, এই কারেন্ট GTO মাধ্যমে প্রবাহিত হওয়ায় GTO টার্ন অফ হয় ও C1, R মাধ্যমে ডিসচার্জ হয়। এই ডিসচার্জ সময় RC1 এর মাধ্যমে নির্ণীত হয়। C1 ডিসচার্জ হওয়ার পর Vc1 এর চেয়ে Vz বেশি হলে GTO পুনরায় কন্ডাক্ট করে। একইভাবে ঘটনার পুনরাবৃত্তি ঘটে। এতে আউটপুটে স-টুথ ওয়েভ তৈরি হয়।

SCR এর তুলনায় GTO এর সুবিধাঃ

  • কম্যুটেশন কম্পোনেন্ট ব্যবহারের প্রয়োজন হয় না ফলে এর আয়তন, ওজন এবং খরচ কমে যায়।
  • কম্যুটেশন চোক ব্যবহার না করার ফলে একুইসটিক এবং ইলেক্ট্রোম্যাগনেটিক নয়েজ হ্রাস পায়।
  • উচ্চ মানের সুইচিং ফ্রিকুয়েন্সি ব্যবহার করে দ্রুত অন করা যায়।
  • কনভার্টারের কার্যক্ষমতা বৃদ্ধি পায়।
  • SCR এর তুলনায় সার্জ কারেন্ট ক্যাপাবিলিটি বেশি।
  • টার্ন অনে di/dt রেটিং উচ্চ মানের থাকে।
  • ফোর্স কম্যুটেশন লস দূরীভূত হওয়ার কারনে কর্মদক্ষতা উচ্চ মানের হয়ে থাকে।

SCR এর তুলনায় GTO এর অসুবিধাঃ

  • ল্যাচিং এবং হোল্ডিং কারেন্টের মান অনেক বেশি।
  • অন স্টেট ভোল্টেজ ড্রপ অনেক বেশি এবং সহযোগী লস সমূহের মানও বেশি।
  • GTO এর বহু ক্যাথোড গঠনের কারণে উচ্চ মানের ট্রিগারিং কারেন্টের প্রয়োজন হয়।
  • গেট ড্রাইভ সার্কিটের লস বেশি।
  • রিভার্স ভোল্টেজ ব্লক করার ক্ষমতা কম।

GTO এর বৈশিষ্ট্য নিম্নরূপ

  • কমুট্যেশন কম্পোনেন্ট ব্যবহারের প্রয়োজন হয় না ফল এর আয়তন, ওজন এবং খরচ কমে যায়।
  • কমুট্যেশন চোক ব্যবহার না করার ফলে একুইসটিক এবং ইলেকট্রম্যাগনেটিক নয়েজ হ্রাস পায়।
  • উচ্চ মানের সুইচিং ফ্রিকুয়েন্সি ব্যবহার করে দ্রুত অন করা যায়।
  • কনভার্টারের কার্যক্ষমতা বৃদ্ধি পায়।
  • অসম ভোল্টেজ ব্লকিং ক্যাপাবিলিটি।
  • সুইচিং লস অনেক কম।
  • রিভার্স ভোল্টেজ ব্লকিং ক্ষমতা কম।
  • উচ্চ মানে গেট ইনপুট ইম্পিডেন্স।
  • হাই পাওয়ার প্রয়োজন হলে সহজেই সিরিজ প্যারালাল কম্বিনেশন সংযোগ দেয়া যায়।
  • কন্ডাকশনের ডিউরেশনে ফরওয়ার্ড ভোল্টেজ ড্রপ অনেক কম হয়ে থাকে।
Facebook Comments