বিদ্যুৎশক্তি পরিবহন এর বিভিন্ন পদ্ধতি

0
31

বর্তমান বিশ্বে উন্নয়নের প্রধান উপাদান এনার্জি। বর্তমান কালের আধুনিক সমাজ বিদ্যুৎশক্তির উপর এমনই নির্ভরশীল যে বিদ্যুৎ ছাড়া জীবন ব্যবস্থা অনেকটাই অকল্পনীয়। আমাদের সমাজে বিভিন্ন ধরনের এনার্জির প্রচলন থাকলেও সবচেয়ে সুবিধাজনক এনার্জি হল বৈদ্যুতিক এনার্জি। বিদ্যুৎশক্তি পরিবহন ও বণ্টন ব্যবস্থার মূল প্রতিপাদ্য বিষয় হল বিদ্যুৎ উৎপাদন কেন্দ্র হতে দূরবর্তী অঞ্চলে অবস্থিত লোড সেন্টারে বিদ্যুৎ পৌঁছানো। সেখান হতে বিভিন্ন জনবল এলাকা বা গ্রোথ সেন্টারে বিদ্যুৎ নিয়ে যাওয়া এবং বাড়িঘর, দোকানপাট, হাটবাজার, কলকারখানায় বিদ্যুৎ বিতরণ করা। তাই এখন আমরা বিদ্যুৎশক্তি পরিবহন পদ্ধতি সম্পর্কে বিস্তারিত জানবো।

বৈদ্যুৎশক্তি পরিবহন ও বিতরণ ব্যবস্থাঃ

উৎপাদন কেন্দ্র হতে গ্রাহক পর্যায় পর্যন্ত বিদ্যুৎ পৌছাতে পরিবাহী তারের এক বিশাল নেটওয়ার্ক গড়ে উঠে। এ নেটওয়ার্ককে বলা হয় ট্রান্সমিশন ও ডিস্ট্রিবিউশন সিস্টেম। উৎপাদন কেন্দ্র হতে লোড সেন্টারসমূহে বিদ্যুৎ পরিবহনের জন্য ট্রান্সমিশন লাইন ও সিস্টেম এবং উপকেন্দ্র হতে গ্রাহক পর্যায়ে বিদ্যুৎ বিতরনের জন্য ডিস্ট্রিবিউশন লাইন ও সিস্টেম।

এসি কম্যুটেটর মোটর

একটি আধুনিক এসি পাওয়ার সিস্টেমের উপাদান সমূহ সাধারণত নিম্নরূপ হয়ঃ-

  1. উৎপাদন কেন্দ্র
  2. স্টেপ আপ উপকেন্দ্র
  3. ট্রান্সমিশন লাইন
  4. সুইচিং স্টেশন
  5. স্টেপ ডাউন উপকেন্দ্র
  6. প্রাইমারী ডিস্ট্রিবিউশন লাইন
  7. সার্ভিস ট্রান্সফরমার বা বিতরণ ট্রান্সফরমার
  8. সেকেন্ডারি ডিস্ট্রিবিউশন লাইন।
বৈদ্যুতিক সিস্টেমের সিঙ্গেল লাইন ডায়াগ্রামঃ

সকল ট্রান্সমিশন ও ডিস্ট্রিবিউশন সিস্টেমে সবগুলো উপাদান থাকতেও পারে আবার নাও থাকতে পারে। তবুও একটা বৈদ্যুতিক সিস্টেমে যে সকল উপাদান সাধারণত থাকে।

ট্রান্সমিশন লাইনঃ বিদ্যুৎ উৎপাদন কেন্দ্র হতে উচ্চ পাওয়ার পরিবহনের জন্য উচ্চ ভোল্টেজের বিশাল সার্কিট বা নেটওয়ার্ক গড়ে তোলা হয়, সেটি ট্রান্সমিশন লাইন। অধিক পাওয়ার পরিবহনের জন্য ট্রান্সমিশন লাইন সিঙ্গেল সার্কিট, ডবল সার্কিট, ট্রিপল সার্কিট হয়ে থাকে। ট্রান্সমিশন লাইন দুই প্রকার যথা, প্রাইমারি ট্রান্সমিশন লাইন ও সেকেন্ডারি ট্রান্সমিশন লাইন।

ডিস্ট্রিবিউশন লাইনঃ গ্রাহক পর্যায়ে অর্থাৎ দোকান-পাট, বাড়িঘর, শিল্পকারখানা, প্রভৃতি স্থানে বৈদ্যুতিক পাওয়ার পৌছে দেয়া বা বিতরনের জন্য যে সার্কিট বা নেটওয়ার্ক গড়ে তোলা হয়, সেটি বিতরণ লাইন বা ডিস্ট্রিবিউশন লাইন। ডিস্ট্রিবিউশন লাইন দুই প্রকার যথা, প্রাইমারি ডিস্ট্রিবিউশন লাইন ও সেকেন্ডারি ডিস্ট্রিবিউশন লাইন।

বৈদ্যুতিক শক্তির ট্রান্সমিশন এন্ড ডিস্ট্রিবিউশন পদ্ধতির শ্রেণিবিন্যাসঃ

প্রাথমিকভাবে ট্রান্সমিশন পদ্ধতি দুই প্রকার

  1. হাই ভোল্টেজ ডিসি পদ্ধতি
  2. হাই ভোল্টেজ এসি পদ্ধতি

ডিস্ট্রিবিউশন পদ্ধতিও দুই প্রকার

  1. লো ভোল্টেজ ডিসি পদ্ধতি
  2. লো ভোল্টেজ এসি পদ্ধতি

বৈদ্যুতিক পাওয়ার ট্রান্সমিশনের ক্ষেত্রে এসি তিন ফেজ তিন তার পদ্ধতিই সর্বাধিক প্রচলিত। ডিস্ট্রিবিউশন এর ক্ষেত্রে তিন ফেজ চার তার পদ্ধতি বহুল ব্যবহৃত হয়। এছাড়াও বিভিন্ন পদ্ধতি রয়েছে সেগুলো হলঃ-

ডিসি পদ্ধতিঃ (ক) ডিসি দুই তার (খ) ডিসি দুই তার মধ্যবিন্দু আর্থ (গ) ডিসি তিন তার পদ্ধতি

এসি পদ্ধতিঃ (ক) সিঙ্গেল ফেজ দুই তার (খ) সিঙ্গেল ফেজ দুই তার মধ্যবিন্দু আর্থ (গ) সিঙ্গেল ফেজ তিন তার (ঘ) দুই ফেজ চার তার (ঙ) দুই ফেজ তিন তার (চ) তিন ফেজ তিন তার (ছ) তিন ফেজ চার তার পদ্ধতি।

Print Friendly, PDF & Email

মন্তব্য ত্যাগ করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন।
দয়া করে, আপনার নাম এখানে লিখুন