প্রিয় পাঠক আজকের আলোচনার বিষয় সুইচিং ইফেক্ট, ট্রান্সমিশন লাইনের রেজোনেন্স, আর্কিং আর্থ, স্থির বিদ্যুৎ আবেশের ব্যাখ্যা ইত্যাদি।

ট্রান্সমিশন লাইনের রেজোনেন্স (Explain the Resonance in Transmission Line)

লেকট্রিক্যাল সিস্টেমে ইন্ডাক্টিভ রিয়াক্টেন্স যখন ক্যাপাসিটিভ রিয়াক্টেন্সের সমান হয়, তখন ঐ অবস্থাকে সিস্টেমের রেজোনেন্স বলা হয়। রেজোনেন্স অবস্থায় সার্কিটের ইম্পিডেন্স সার্কিটের রেজিস্ট্যান্সের সমান হয় এবং বর্তনীর।
পাওয়ার ফ্যাক্টরের মান হয় একক। রেজোনেন্সের কারণে বৈদ্যুতিক সিস্টেমে উচ্চ ভােল্টেজের সৃষ্টি হয়। সাধারণত ট্রান্সমিশন লাইনের ক্যাপাসিটিভ রিয়াক্টেন্সের মান খুবই কম থাকে। ফলে সাপ্লাই ফ্রিকুয়েন্সিতে রেজোনেন্স খুব কমই (Rarely) সংঘটিত হয়ে থাকে। অন্যদিকে জেনারেটরের উৎপন্ন ভােল্টেজ ওয়েভ যদি বিঘ্নিত হয় (Distroted), তখন পঞ্চম বা তার চেয়ে উচ্চতর হারমােনিকসের কারণে রেজোনেন্স সংঘটিত হয় এবং আন্ডারগ্রাউন্ড ক্যাবলের ক্ষেত্রেও একই।

সুইচিং ইফেক্ট (Explain the Switching Effect)

সুইচিং অপারেশনের সময় পাওয়ার সিস্টেমে ওভার ভােল্টেজ উৎপন্ন হওয়ার প্রক্রিয়াকে সুইচিং ইফেক্ট বলে। বিভিন্ন অবস্থাতে এ সুইচিং ইফেক্ট উৎপন্ন হয়ে থাকে। নিচে কয়েকটি ক্ষেত্রের বর্ণনা দেওয়া হলাে :
(১) লাইন খােলা অবস্থায় (Case of Open Line) : লােডবিহীন অবস্থায় সুইচিং অপারেশনের সময় ট্রাভেলিং ওয়েভের কারণে লাইনে ওভার ভােল্টেজ উৎপন্ন হয়। যখন একটি লােডবিহীন লাইন উৎসের সাথে সংযােগ প্রদান করা হয়, তখন লাইন বরাবর ট্রাভেলিং ওয়েভের সৃষ্টি হয়। এ ওয়েভ লাইনের শেষপ্রান্তে পৌছার পর পুনরায় এর সাইনের পরিবর্তন ছাড়াই ফেরত আসে। ফলে লাইনের ভােল্টেজ দ্বিগুণ হয়ে যায়। যদি
সরবরাহকৃত ভােল্টেজের আরএমএস মান E হয়, তবে তাৎক্ষণিক মান দাঁড়াবে 2√2 E। এ ওভার ভােল্টেজ খুব অল্প সময়ের জন্য স্থায়ী হয়। আবার ঠিক একইভাবে সুইচিং অফের সময় এরূপ অবস্থার সৃষ্টি হয়।

(২) কারেন্ট চপিং (Current Chopping) : যখন অল্পমাত্রার কারেন্ট (ট্রান্সফরমারের ম্যাগনেটাইজিং কারেন্ট) এয়ার ব্লাস্ট সার্কিট ব্রেকারের সাহায্যে ব্রেকিং করা হয়, তখন এয়ার ব্লাস্টের শক্তিশালী ডি-আয়ােনাইজিং এর কারণে স্বাভাবিক কারেন্ট শূন্যমানে আসার আগেই কারেন্ট শূন্য হয়। এ অবস্থাকে কারেন্ট চপিং বলে এবং এর কারণে সার্কিট ব্রেকার কন্টাক্টে ট্রানজিয়েন্ট ভােল্টেজের সৃষ্টি হয়। এ কারেন্ট চপিং, রেজিস্ট্যান্স সুইচিং এর সাহায্যে প্রতিহত করা যায়।

আর্কিং আর্থ বর্ণনা (Describe the Arcing Earth)

পূর্বকালে তিন-ফেজ লাইনের নিউট্রাল বিন্দু আর্থিং না করে বরং ইনসুলেট করে রাখা হতাে। ফলে কোনাে একফেজে আর্থ ফল্ট সংঘটিত হলে অন্য দুটি ফেজে কোনাে অসুবিধা দেখা দিত না। কাজেই ঐ দুটি লাইন দিয়ে সরবরাহ অবিচ্ছিন্ন রাখা যেত। এছাড়াও লাইনের দৈর্ঘ্য বরাবর সমান্তরালে (জিরাে ফেজ সিকোয়েন্স) কারেন্ট
প্রবাহের দরুন পাশের টেলিকমিউনিকেশন লাইনে যে নয়েজ বা গােলমাল সৃষ্টি হতাে তা নিবারণ করা যেত। পরবর্তীতে দীর্ঘ ট্রান্সমিশন লাইনে উচ্চ ভােল্টেজ পরিবহনের ক্ষেত্রে এটি মােটেই ফলপ্রসূ হয়নি বরং মারাত্মক অসুবিধার সৃষ্টি করেছে।

ট্রান্সমিশন লাইনের কন্টাক্টরগুলাের সাথে আর্থের
ডিস্ট্রিবিউটেড ক্যাপাসিট্যান্স সৃষ্টি হয়। কাজেই দুটি লাইনের ক্যাপাসিট্যান্সজনিত চার্জিং কারেন্ট ৩নং লাইনের আর্কিংয়ে সহায়তা করে এবং আর্কিং সৃষ্টি হয়। কাজেই দেখা গেছে দীর্ঘ লাইনের নিউট্রাল বিন্দু যদি আর্থ করা না থাকে তবে কোনাে ফেজে আর্থ ফল্ট সংঘটিত হলে অন্য দুটি ফেজে স্বাভাবিকের তুলনায় 3 থেকে 4 গুণ বেশি।ভােল্টেজ কম্পন দেখা দেয়। এ কম্পন আস্তে আস্তে পুঞ্জীভূত হয়ে প্রচণ্ড আর্কিং-এর সৃষ্টি করে।
নিউট্রাল পয়েন্টকে সলিড আর্থিং বা পিটারসিন কয়েলের সাহায্যে আর্থিং করে এ ত্রুটি দূর করা যায়।

স্থির বৈদ্যুতিক আবেশের ব্যাখ্যা (Explanation of Electrostatic Induction)

পজেটিভ চার্জযুক্ত কোনাে মেঘখণ্ড যখন পরিবহন লাইনের উপর স্থির থাকে তখন ইলেকট্রোস্ট্যাটিক ইন্ডাকশনের ফলে মেঘখণ্ড বরাবর নিচের পরিবহন লাইনে নেগেটিভ চার্জের উৎপত্তি ঘটায়। এ নেগেটিভ চার্জ সংবলিত স্থানে উভয় দিকের লাইনে পজেটিভ চার্জ সৃষ্টি হয়। লাইনের দুই পাশের এ আবিষ্ট পজেটিভ চার্জ আস্তে আস্তে
ইনসুলেটরের মাধ্যমে লিক হয়ে আর্থে চলে যায়। যখন লাইনের উপরের দণ্ডায়মান পজেটিভ চার্জযুক্ত মেঘ অন্য মেঘের সংস্পর্শে এসে চার্জবিহীন হয়ে পড়ে বা ঝড়ের ফলে অন্যত্র সরে যায় তখন লাইন নেগেটিভ চার্জমুক্ত হয়ে
পড়ে।

কিন্তু এ সময় মুক্ত নেগেটিভ চার্জগুলাে ইনসুলেটরের মাধ্যমে অতি দ্রুত আর্থে যেতে পারে না। এর পরিণতিতে এ নেগেটিভ চার্জ লাইনের উভয় দিকে প্রবাহিত হয়ে ট্রাভেলিং ওয়েভের সৃষ্টি করে। এ ওয়েভের চূড়া যথেষ্ট তীক্ষ থাকায় সরবরাহ লাইনে ব্যবহৃত যন্ত্রপাতির যথেষ্ট ক্ষতি হওয়ার সম্ভাবনা থাকে। বৈদ্যুতিক যন্ত্রপাতির
ইনসুলেশন আপগ্রেডিং করে এবং লাইটিং অ্যারেস্টার ও সার্জ অ্যাবজরবার ব্যবহার করে এর ক্ষতিকর প্রভাব বহুলাংশে দূরীভূত করা যায়। ইলেকট্রোস্ট্যাটিক ইন্ডাকশনের ফলে এরূপ স্ট্রোক সংঘটিত হয় বিধায় ‘এটি ইন্ডাইরেক্ট লাইটনিং স্টোক নামেও পরিচিত। ট্রান্সমিশন লাইনে লাইটনিং-এর জন্য বেশিরভাগ সার্জ উৎপন্ন হয়। এর মধ্যে আবার ইলেকট্রোস্ট্যাটিক ইন্ডাকশন অন্যতম।

Facebook Comments