এয়ার সার্কিট ব্রেকার কি বিস্তারিত

0
89

হ্যালো পাঠক কেমন আছেন সবাই? ইলেক্ট্রিসিটিবিডি এর পক্ষ থেকে আপনাদের সবাইকে আবারো স্বাগতম জানাই। আজকে আমরা এয়ার সার্কিট ব্রেকার সম্পর্কে বিস্তারিত জানবো।

যেসব বিষয় আলোচনা করা হবে

  • ACB কি?
  • সার্কিট ব্রেকার প্রকারভেদ
  • সাধারণ সার্কিট ব্রেকার
  • এয়ার ব্লাস্ট সার্কিট ব্রেকার
  • এয়ার সার্কিট ব্রেকারের ব্যবহার
  • এয়ার সার্কিট ব্রেকারের কার্যপ্রণালী

ACB কি?

ACB এর পূর্ণনাম হল- Air circuit breaker. এটি এক ধরনের সার্কিট ব্রেকার। এটির নাম যেমন এটির কাজ ও তেমনই। এটি এয়ার দিয়েই কন্ট্রোল হয়।

এয়ার সার্কিট ব্রেকার কাকে বলে?

যে সার্কিট ব্রেকার এয়ার দিয়ে কন্ট্রোল হয় অর্থাৎ বাতাসের চাপ দিয়ে যে ব্রেকার কে অন করা হয় আবার বাতাসের চাপ দিয়েই অফ করা হয় সেই ধরনের ব্রেকারকে Air circuit breaker বলে।

প্রকারভেদঃ

বাতাস (বায়ু ) ব্যবহারের ধরণ অনুযায়ী এয়ার সার্কিট ব্রেকার দুই প্রকার যথা-

  • সাধারণ সার্কিট ব্রেকার
  • এয়ার ব্লাস্ট সার্কিট ব্রেকার

সাধারণ সার্কিট ব্রেকারঃ

সাধারণ সার্কিট ব্রেকারের মুল অংশ হিসেবে দুটি লিভার, একটি ইলেক্ট্রিক চুম্বক এবং স্প্রিং থাকে। লিভার দুটি যুক্ত করার জন্য লিভারের প্রান্তে খাঁজ কাটা থাকে। এক পোলের জন্য একটি, দুই পুলের জন্য দুইটি এবং তিন পোলের জন্য তিনটি কন্ট্যাক পাত, কন্ট্যাক লিভারের সাথে যুক্ত থাকে। কন্ট্যাক লিভারের সাথে একটি স্প্রিং লাগানো হয় , যাতে কন্ট্যাক পাত কন্ট্যাক থেকে আলাদা করতে চেষ্টা করে। হোল্ডিং লিভারের সাথে একটি স্প্রিং লাগানো হয়, যাতে হোল্ডিং লিভারকে চুম্বকের উল্ট দিকে টেনে রাখে। কারেন্ট চুম্বক কয়েলটি লাইনের সাথে সিরিজে সসংযুক্ত থাকে। আবার কারেন্ট ট্রান্সফর্মারের ও সংযুক্ত থাক্ত পারে।প্লাস্টিক দিয়ে নব বা হ্যন্ডেল বানানো হয় ,যা দিয়ে কন্ট্যাক লিভার কে চাপ দিয়ে ব্রেকার নিয়ন্ত্রন করা হয়। নব চাপ দিলে কন্ট্যাক লিভার খাজে আটকযায়এবংকন্ট্যাক পাত সার্কিট বন্ধ করে। ওভার কারেন্ট প্রবাহিত হইলে চুম্বকের আকর্ষণে হোল্ডিং লিভার নেমে আসে। ফলাফল, স্প্রিং এর টানে কন্ট্যাক লিভার আলাদা হয় এবং সার্কিট বন্ধ হয়ে যায়।

এয়ার ব্লাস্ট সার্কিট ব্রেকারঃ

এয়ার ব্লাস্ট সার্কিট ব্রেকার একটি চীনামাটিরবুশিং এর উপরের ভাগে দুটি স্থির কন্ট্যাক্ট থাকে । এই দুটি স্থির কন্ট্যাক্ট এর মধ্য দিয়ে একটি চলনশীল কন্ট্যাক্টচলাচল করে সার্কিট বন্ধ বা খুলে দেয়। স্থির কন্ট্যাক্ট দুইটি ব্রেকারের টার্মিনাল । চলমান কন্ট্যাক্ট দুইটি ব্রেকারের টার্মিনাল। চলমান কন্ট্যাক্ট এর সাথে একটি প্লাঞ্জার থাকেযা নিচের চেম্বারের তল ঘেষে উঠানামা করে ।
বুশিং এর সাথে তিনটি নল লাগানো থাকে । সর্বনিম্ন নলেরমধ্যে বাতাসের চাপবাতাসের চাপ প্রয়োগ করা হলে প্লাঞ্জার উপরে উঠে ব্রেকার বন্ধ করে।মাঝের নলে বাতাসের চাপ দিলে প্লাঞ্জার নিচে ঠেলেদেয় ফলে ব্রেকার খুলে যায় । এই মাঝের নলের উপরের মোটা নলে বাতাস চাপ আর্কের দিকে প্রয়োগ করা হয় এবং আর্ক বাইরে উড়িয়ে নিয়ে যায়।

এটি আবার তিন প্রকার যথা-

  • এক্সিয়াল ব্লাস্ট
  • ক্রস ব্লাস্ট
  • ডাবল ব্লাস্ট

এয়ার সার্কিট ব্রেকারের ব্যবহারঃ

  1. বৈদ্যুতিক লাইন কে সাধারণ অবস্থায় অন বা অফ করার জন্য এই সার্কিট ব্যাবহার করা হয়।
  2. বৈদ্যুতিক লাইনকে অস্বাভাবিক অবস্থাজনিত ক্ষয় ক্ষতি হতে রক্ষা করার জন্যও এই সার্কিট ব্রেকার ব্যবহার করা হয়। লাইনের কোথাও দোষ ত্রুটি দেখা দিলে ব্রেকার ট্রিপ করে এবং ত্রুটিপুর্ণ অংশ আলাদা করে দেয়।
  3. সাধারণ এয়ার সার্কিট ব্রেকার ডিষ্টিবিউশন ট্রান্সফর্মারের লোডের দিকে বাসবারে ব্যবহার করা হয় । বিভিন্ন বাস ভবন ,অফিস ,হোটেল রেস্তোরায় অপেক্ষাক্রিত ছোট আকারের এয়ার সার্কিট ব্রেকার ব্যবহার করা হয়।

এয়ার সার্কিট ব্রেকারের কার্যপ্রণালী

যখন ফল্ট দেখা দেয়, তখন প্রধান কন্টাক্টগুলি আলাদা হয়ে যায় এবং কারেন্ট আরচিং কন্টাক্টে স্থানান্তরিত হয়। এখন আরচিং কন্টাক্টটি আলাদা, এবং তাদের মধ্যে চাপ আঁকা হয়। এই চাপ ইলেক্ট্রোম্যাগনেটিক শক্তি এবং তাপ কর্ম দ্বারা ঊর্ধ্বে জোর দেওয়া হয়। চক চাকার রানারের সাথে ভ্রমণ শেষ হয়। চাপ উপরের দিকে চলে যায় এবং চাপ স্প্লিটার প্লেট দ্বারা বিভক্ত হয়। লম্বা, কুলিং, বিভাজন, ইত্যাদি দ্বারা চাপটি নির্বাপিত হয়।

Print Friendly, PDF & Email

মন্তব্য ত্যাগ করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন।
দয়া করে, আপনার নাম এখানে লিখুন